শনিবার, ১৩ Jul ২০২৪, ০৭:০০ পূর্বাহ্ন

সেন্টমা‌র্টিনে ৭দিন ধ‌রে খাদ‌্যপণ‌্য সরবরাহ বন্ধ, মিয়ানমা‌রের ওপার থে‌কে অহরহ গু‌লি ছুঁড়‌ছে, নিরাপত্তাহীনতা ভোগ‌ছে ১০ হাজার মানুষ!

সেন্টমা‌র্টিনে ৭দিন ধ‌রে খাদ‌্যপণ‌্য সরবরাহ বন্ধ, মিয়ানমা‌রের ওপার থে‌কে অহরহ গু‌লি ছুঁড়‌ছে, নিরাপত্তাহীনতা ভোগ‌ছে ১০ হাজার মানুষ!

{"remix_data":[],"remix_entry_point":"challenges","source_tags":[],"origin":"unknown","total_draw_time":0,"total_draw_actions":0,"layers_used":0,"brushes_used":0,"photos_added":0,"total_editor_actions":{},"tools_used":{},"is_sticker":false,"edited_since_last_sticker_save":false,"containsFTESticker":false}

মোস‌লেহ উদ্দিন উখিয়া থে‌কে > মিয়ানমা‌রের অভ‌্যান্ত‌রে যুদ্ধ প‌রি‌স্থি‌তির কার‌ণে দে‌শের সা‌থে যোগা‌যোগ ব‌্যবস্থা বি‌চ্ছিন্ন হ‌য়ে প‌ড়ে‌ছে। টেকনাফ থে‌কে কো‌নো নৌযান সেন্টমা‌র্টিনে যে‌তে পার‌ছেনা। ও‌দিক থে‌কেও নৌযান আস‌তে পার‌ছেনা। নাফন‌দে বাংলা‌দে‌শি কো‌নো নৌযান দেখ‌লেই মিয়ানমার থে‌কে গু‌লি ছুঁড়‌ছে।

মিয়ানমা‌রে অভ‌্যান্ত‌রিণ গোলযো‌গের কার‌ণে মঙ্গলবার পর্যন্ত টানা ৭ দিন ধরে চলছে এই পরিস্থিতি। কেউ কেউ সাহস করে টেকনাফ থেকে নৌযান ছেড়ে দেয় সেন্টমার্টিনের উদ্দেশে। নাফন‌দের মাঝামাঝি অংশে ‌পৌছ‌লে(বাংলাদেশ সীমান্ত) নৌযান লক্ষ্য করে ওপার থেকে গুলি এসে পড়ছে। এ অবস্থায় নৌযান ঘুরিয়ে নিয়ে নিরাপদে ভিড়ছে পুনরায় টেকনাফ ঘাটে। সেন্টমার্টিনে বসবাস করছে ১০ হাজারের মতো মানুষ। তারা এখন খাদ্য ও নিত্যপণ্য নিয়ে সংকটে পড়েছেন। তাদের মধ্যে চরম উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে।

সর্বশেষ গত মঙ্গলবার টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন যাওয়ার পথে নাফনদ পেরিয়ে সাগরের মোহনায় পৌছ‌লে রোগী বাহী স্পিডবোটকে ধাওয়া করে গুলি ছু‌ড়ে মিয়ানমারের সৈন্যরা। এ ঘটনায় কেউ হতাহত না হ‌লেও এ পর্যন্ত তিনদফা গুলির ঘটনা ঘটি‌য়ে‌ছে তারা। টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন যাওয়ার পথে নাফন‌দের মোহনা শেষে নাইক্ষ্যংদিয়া এলাকা অতিক্রম করার সময় মিয়ানমারের ওপ্রান্ত থেকে বাংলাদেশের বোটগুলো লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হচ্ছে।

গত ৫ জুন টেকনাফ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষে ফেরার পথে নির্বাচন কর্মকর্তা ও ৮জুন সেন্টমার্টিনে ইট-বালি ও খাদ্যসামগ্রী বহনকারী ট্রলার লক্ষ্য করে মিয়ানমা‌রের ওপার থেকে গুলি বর্ষণ করা হয়।

উপকূলীয় জলসীমায় নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছে কোস্ট গার্ড। এ নিয়ে কোস্টগার্ড সদর দপ্তর ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং  পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অব‌হিত করেন। কোস্টগার্ড কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও বিজিবির সেক্টর পর্যায়ে তথ্য আদান প্রদান করেছে। বিষয়টি মনিটরিং করছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মিয়ানমার উইংয়ের মহাপরিচালক মিয়া মো: মাইনুল কবির একটি বিদেশি গণমাধ্যমের কাছে বলেছেন, প্রথম যেদিন এই ঘটনা ঘটে, সেদিনই আমরা প্রতিবাদ জানিয়েছি। এই ঘটনার পর কূটনৈতিক চ্যানেলে আবারও প্রতিবাদ জানা‌নো হ‌বে। তবে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে যে এখন স্বাভাবিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে না, সেটা তো আমরা বুঝতেই পারছি। ওই এলাকা এখন কাদের নিয়ন্ত্রণে সেটিও পরিষ্কার নয়। তবে আমাদের কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত আছে।’

টেকনাফ থে‌কে গনমাধ‌্যম কর্মী‌দের প্রাপ্ত খব‌রে জানা গে‌ছে, গত মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে বঙ্গোপসাগরের ঘোলচর নামক স্থানে একটি স্পিডবোট লক্ষ্য করে মিয়ানমারের দিক থেকে পরপর কয়েক রাউন্ড গুলি ছুঁ‌ড়ে। ওই স্পিডবোটে চট্টগ্রাম থেকে চিকিৎসা শে‌ষে রোগীকে সেন্টমার্টিনে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণের পর স্পিডবোটটি কোনো রকম সেন্টমার্টিনে পৌঁছাতে সক্ষম হয়। তবে এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি।

কারা এই গুলি করছে? মিয়ানমারের জান্তার সৈন্যরা, নাকি বিদ্রোহীরা? জানতে চাইলে স্পিডবোটের মালিক সৈয়দ আলম বলেন, আগে গুলির ঘটনার পর গত পাঁচ দিন আমরা নদীতে যাইনি। প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনার পর গত মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে স্পিডবোটটি সেন্টমার্টিনের উদ্দেশে রওনা দেয়। আগে আমরা নিশ্চিত ছিলাম না, কারা গুলি ছুড়ছে।

কিন্তু আজকে যখন ছোট ছোট নৌযান নিয়ে আমাদের স্পিডবোটে গুলি করা হয়, তখন সেখানে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর জাহাজ ছিল। ফলে আমরা ধারণা করছি জান্তার সৈন্যরাই এটা করছে।

৬দিন ধ‌রে খাদ‌্যপণ‌্য সরবরাহ বন্ধ সেন্টমা‌র্টিনে বৃহস্পতিবার থেকে টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিনের নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। ফলে সেখানে খাদ্যসংকট দেখা দিয়েছে। নিত্যদিনে ব্যবহার্য পণ্য যেমন, চাল, ডাল ও তেলের চরম সংকট চলছে। এ ব্যাপারে সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান বলেন, ৭ দিন ধরে টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিনে কোনো ধরনের খাদ্য সরবরাহ করা যাচ্ছে না। ফলে ১০ হাজার দ্বীপবাসীর মধ্যে চরম খাদ‌্য সংক‌টে পড়েছে।

বিষয়টি নিয়ে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আদনান চৌধুরীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মিয়ানমার থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে স্পিডবোট-ট্রলারে গুলির ঘটনায় নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে আপদকালীন রুট হিসেবে শাহপরীর দ্বীপের পশ্চিমে জেটি ঘাট চালু করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। আমি নিজে নৌযানের মালিকদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। ২ দিন আগে কক্সবাজারের ডিসি অফিসেও বৈঠক হয়েছে। আমরা নৌযান মালিকদের ডেকে বলেছি, বিকল্প রুট দিয়ে আপাতত খাদ্য পৌঁছানোর ব্যবস্থা করতে।

সীমান্তবাংলা.কম/এমইউ/১২জুন২৪

পোষ্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© কপিরাইট ২০১০ - ২০২৪ সীমান্ত বাংলা >> এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ

Design & Developed by Ecare Solutions