সাতকানিয়ায় বৃদ্ধ বাবা-মাকে নির্যাতন ও প্রাণনাশের হুমকি: ছেলের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ

SIMANTO SIMANTO

BANGLA

প্রকাশিত: জুলাই ৪, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক ;

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় বৃদ্ধা বাবা-মার উপর নিষ্ঠুর নির্যাতন, প্রতারণা করে জমি লিখে নেওয়া এবং প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ উঠেছে এক ছেলের বিরুদ্ধে। বাবা নিজেই বাদী হয়ে ছেলের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

শুক্রবার (০২ জুন) দুপুরের দিকে সাতকানিয়া থানায় মোঃ রাশেদ (৪৫) ও তার স্ত্রী নাজমিন আক্তার (৪০) কে আসামি করে লিখিত অভিযোগ করেন বৃদ্ধ বাবা মৌলানা শামসুল ইসলাম হেলালী (৭৫)। ঘটনাটি সাতকানিয়া উপজেলার বাজালিয়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের মাহালিয়া গ্রামে। ওই গ্রামের বাসিন্দা মৌলানা শামসুল ইসলাম হেলালীর ছেলে অভিযুক্ত মোঃ রাশেদ।

স্থানীয় ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মৌলানা শামসুল ইসলাম হেলালীর চার ছেলে ও চার মেয়ে রয়েছে। তারা যৌথ অর্থায়নে বিগত ১৫ বছর পূর্বে মৌরশী জায়গায় ৬ রুম বিশিষ্ট একটি পাকা বাড়ি নির্মাণ করেন এবং যৌথ ভাবে বসবাস করে আসছিলো। বিগত ২/৩ বছর ধরে ১নং বিবাদী বাবা-মা সহ অন্য ছেলেদেরকে বাড়ি হতে বাহির জন্য গালিগালাজ ও মারধর করে বাড়ি থেকে বাহির করে দেই। এরপর থেকে তারা একটি ভাড়া বাসায় আশ্রয় নে। গত ২০/০৬/২০২২ইং তারিখে মৌলানা শামসুল ইসলাম হেলালী ও তার স্ত্রী লায়লা বেগম এবং মেঝ ছেলে মোঃ জাহেদ (৩৭) তাদের নির্মাণকৃত বসত বাড়িতে গেলে ১নং বিবাদী মোঃ রাশেদ ও তার স্ত্রী তাদেরকে গালিগালাজ করে। এমনকি বাড়ি যদি থাকে তাদেরকে প্রাণে হত্যা করবে বলে প্রকাশ্য হুমকি প্রদান করেন।

বিগত ২০২১ সালে বৃদ্ধ বাবা মৌলানা শামসুল ইসলাম হেলালী অসুস্থ থাকা অবস্থায় তার বড় ছেলে ১নং বিবাদী মোঃ রাশেদ তার বাবাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে কৌশলে স্বাক্ষর নিয়ে মৌরশী জায়গা জোরপূর্বক তার নামে ৪৬৩০ নং দলিল মূলে হেবা করে নেন। এছাড়াও ১নং বিবাদী বিভিন্ন ধাপে তার বাবার কাছথেকে ১১ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নে। বর্তমানে তাদের নির্মাণকৃত বাড়ি থেকেও ভাড়া বাসায় কষ্টের জীবনযাপন করতে হচ্ছে। কিন্তু এতে সন্তুষ্ট হয়নি বড় ছেলে মোঃ রাশেদ। পরে মায়ের নামে অবশিষ্ট জমি লিখে দিতে চাপ প্রয়োগ করেন রাশেদ। প্রতারণা করে জমি লিখে নিয়েও তার হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে বাবা,মা সহ ভাই বোনেরা। এরপর থেকে তাদের ওপর নেমে আসে এ অমানুষিক নির্যাতন।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে বৃদ্ধ বাবা মৌলানা শামসুল ইসলাম হেলালী বলেন, আমি অসুস্থ থাকা অবস্থায় ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে আমার বড় ছেলে মোঃ রাশেদ আমার কাছথেকে জোরপূর্বক স্বাক্ষর নিয়ে ফেলে। এছাড়াও আমার কাছথেকে ১১ লক্ষ টাকা বিভিন্ন ভাবে হাতিয়ে নে। এভাবে বিগত ৩ বছর ধরে নির্যাতন করে আসতেছে। আমার স্ত্রী ও মেঝো ছেলে মোঃ জাহেদ কে সাথে নিয়ে বিগত ২০/০৬/২০২২ইং তারিখে বসত বাড়িতে গেলে বড় ছেলে মোঃ রাশেদ ক্ষিপ্ত হয়ে গালিগালাজ করে। নির্মাণকৃত বাড়িতে থাকার চেষ্টা করলে এক পর্যায়ে তিনি মেরে ফেলার হুমকি দেই। এক পর্যায়ে তিনি আমাকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দে। এসময় আমার স্ত্রী লায়লা বেগমকে মারধর করে এবং বেড়াতে আসা আমার এক মেয়েকে মেরে হাতের একটি আঙুল ভেঙ্গে দেওয়া হয়। জীবনের শেষ বয়সে এসেও ওই পাষাণ ছেলেটির নির্যাতন সহ্য করতে হচ্ছে। তাই বাধ্য হয়ে প্রতিকার চেয়ে ছেলের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছি।

মৌলানা শামসুল ইসলাম হেলালীর স্ত্রী লায়লা বেগমের অভিযোগ, বড় ছেলে মোঃ রাশেদের অত্যাচারে কোন রকমে স্বামীসহ অন্য ছেলেদের নিয়ে বাসা ভাড়ায় কষ্টের দিন কাটাচ্ছি। বর্তমানে মাথা গোঁজার ঠাঁই হিসেবে নির্মাণকৃত বসত বাড়িতেও নেই। খেয়ে না খেয়ে অনেক কষ্টে দিন পার করতেছি। আমাদের বড় ছেলে রাশেদ প্রায় আমাকে ও তার বাবা সহ অন্য ছেলেদের উপর নির্যাতন করে যাচ্ছে। এছাড়া যখন-তখন আমাদের প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। আমরা বর্তমানে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমরা তার বিচার চাই।

বাজালিয়ার ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মমতাজ মিয়া বলেন, বাবা-মাকে মারধরের ঘটনা সত্য। এ বিষয়ে একাধিক বার স্থানীয়দের নিয়ে বসা হলেও অভিযুক্ত মোঃ রাশেদ বিচার মানতে রাজি হয়নি। তার ইচ্ছামতে বাবা-মায়ের উপর নির্যাতন করে যাচ্ছে। এরকম ছেলের বিচার হওয়া প্রয়োজন বলেও জানান তিনি।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মোঃ রাশেদ এর সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে মামলা তদন্তকারী এএসআই জহিরুল ইসলাম বলেন, আইনের আশ্রয় নেওয়া বৃদ্ধা বাবার লিখিত অভিযোগটি আমলে নেওয়া হয়েছে। উভয় পক্ষকে ঈদের পরে থানায় ডাকা হয়েছে। সঠিক তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।