শনিবার, ২২ Jun ২০২৪, ০৩:৪২ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ
সেন্টমা‌র্টিন দ্বীপ নি‌য়ে বাকযুদ্ধ – মেজর না‌সিরু‌দ্দিন(অব) পিএইচ‌ডি রা‌সেল ভাইপার সা‌পের কাম‌ড়ে আক্রান্ত কৃষক এখ‌নো সুস্থ  রাসেলস ভাইপার নিয়ে আতঙ্ক না ছড়িয়ে সচেতন হওয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের এক ছাগল কিনেই বেরিয়ে এলো মতিউর-লাকী দম্পতির থলের বেড়াল ভারতকে হারিয়ে সেমিফাইনালের আশা বাঁচিয়ে রাখতে মরিয়া টাইগাররা প্রধানমন্ত্রী দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে নয়াদিল্লী পৌঁছেছেন মোটরবাইক ও ইজিবাইকের কার‌ণে সা‌দে‌শে সড়ক দুর্ঘটনা বাড়‌ছে- সেতুমন্ত্রী ওবাইদুল কা‌দের  ওমা‌নে খুল‌ছে বাংলা‌দে‌শের তৃতীয় বৃহত্তম শ্রমবাজার এলাকাজুড়ে আতঙ্ক, মানিকগঞ্জে লোকালয়ে ঢুকেছে রাসেল ভাইপার উত্তর পুর্বাঞ্চলীয় রা‌জ্যের স‌ঙ্গে অন‌্যান‌্য রাজ‌্যগু‌লোকে সংযুক্ত কর‌তে বাংলা‌দে‌শের উপর‌দি‌য়ে বিকল্প রেলপথ তৈ‌রি কর‌তে যা‌চ্ছে ভারত সরকার 
সাগর পাড়ে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান: পুলিশ, দখলদার সংঘর্ষে আহত ১০

সাগর পাড়ে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান: পুলিশ, দখলদার সংঘর্ষে আহত ১০

সীমান্ত বাংলাঃ কক্সবাজার বীচে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদকল্পে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে যৌথভাবে অভিযান পরিচালনার সময় পুলিশ ও দখলদারদের সাথে সংঘর্ষের ঘঠনা ঘঠেছে।

উচ্চ আদালতের নির্দেশানুযায়ী কক্সবাজার সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টে অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা ৫২ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে গিয়ে পুলিশ ও দখলদারদের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের সাংবাদিকসহ অন্তত ১০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

আজ শনিবার ১৭ অক্টোবর বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। কক্সবাজার সদর ইউনিয়ন উপসহকারী ভূমি কর্মকর্তা মো. জাহেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেন। আহত সাংবাদিককে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে ।

উপসহকারী ভূমি কর্মকর্তা মো. জাহেদ বলেন, ‘উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী কক্সবাজার জেলা প্রশাসন এবং কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আজ যৌথভাবে এই অবৈধ স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করতে গেলে এগুলোর মালিক এবং দখলদারেরা জড় হয়ে প্রথমে উচ্ছেদে বাধা দেয়। একপর্যায়ে পুলিশের ওপরে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। অবৈধ দখলদারেরা এ সময় তারা বুলডোজারের সামনে শুয়ে পড়ে এবং পুলিশের ওপরে চড়াও হয়।

তিনি আরও বলেন, ‘একপর্যায়ে অবৈধ দখলদারদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ রাবার বুলেট এবং টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে। এতেও অবৈধ দখলদাররা না সরলে পুলিশ প্রায় ২০ রাউন্ড ফাকা গুলি বর্ষণ করে।

এখনো উচ্ছেদ অভিযান চলছে। উচ্ছেদ অভিযানে উপস্থিত ছিলেন সরকারের উপসচিব এবং কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সচিব আবু জাফর রাশেদ, কক্সবাজার সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার মো. শাহরিয়ার মুক্তার এবং কক্সবাজার সদর থানার ওসি শেখ মনিরুল।

( সীমান্তবাংলা/ শা ম/ ১৭ অক্টোবর ২০২০)

পোষ্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© কপিরাইট ২০১০ - ২০২৪ সীমান্ত বাংলা >> এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ

Design & Developed by Ecare Solutions