শুক্র. আগস্ট ২৩, ২০১৯

বিভিন্ন জেলায় বন্যায় ১২ দিনে ৮৭ জনের মৃত্যু

দেশে বন্যার কারণে গত ১২ দিনে বিভিন্ন জেলায় মারা গেছে অন্তত ৮৭ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমারজেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম এক হিসাবে এই তথ্য জানিয়েছে

এতে বলা হয়, সবচেয়ে বেশি প্রাণহানি হয়েছে জামালপুর জেলায়। সেখানে ২৯ জন মারা গেছে। এছাড়া গাইবান্ধা জেলায় ১৫ জন, নেত্রকোনায় ১৩ জন এবং টাঙ্গাইল ও সুনামগঞ্জ জেলায় পাঁচ জন করে মারা যাওয়ার কথা জানানো হয়েছে। প্রাণহানি হয়েছে লালমনিরহাট, নীলফামারী, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, কুড়িগ্রাম, শেরপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, সিরাজগঞ্জ, বগুড়া এবং ফরিদপুরে।

এসব জেলায় সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে পানিতে ডুবে। ১০ জুলাই থেকে শুরু করে ২২ জুলাই পর্যন্ত সময়ে বন্যায় পানিতে ডুবে প্রাণ হারিয়েছেন ৭০ জন। এছাড়া সাপের কামড়ে আটজন, বজ্রপাতে সাতজন, আর.টি.আই’য়ে আক্রান্ত হয়ে একজন এবং অন্যান্য কারণে আরো একজনের মৃত্যু হয়েছে।

বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি

বন্যা পূর্বাভাস এবং সতর্কতা কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া জানান, গত সপ্তাহে ভারী বৃষ্টির কারণে যে বন্যা ছিল সেটা বৃষ্টিপাত কমে যাওয়া খুব দ্রুত উন্নতি হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘এখন বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে। ব্রহ্মপুত্র নদের মধ্যভাগের জেলাগুলোতে গত তিন চার দিন ধরে পানি খুব হ্রাস পাচ্ছে, বিপদসীমার নিচেও নেমে যাচ্ছে। দুই তিনটি পয়েন্টে এখনো পানি বিপদসীমার উপরে থাকলেও তা খুব দ্রুত নেমে যাবে।’ মধ্যাঞ্চল ও উত্তরাঞ্চলের অবস্থা উন্নতির দিকে। বৃষ্টির কারণে কিছুটা স্থিতিশীল অবস্থায় পৌঁছালেও এটির আবার উন্নতি হবে বলে জানান তিনি।

মিস্টার ভূঁইয়া বলেন, ভারতের আসামে নতুন করে বৃষ্টিপাত শুরু হলেও এটা স্বল্প মেয়াদী এবং স্বল্প মাত্রায় হওয়ায় তা বাংলাদেশের বন্যা পরিস্থিতিতে তেমন কোনো প্রভাব ফেলবে না। বৃষ্টির কারণে আগামী দুই-এক দিন কয়েক জায়গায় পানি বৃদ্ধি পেলেও তা আবার কমে যাবে। আগামী অগাস্টের মধ্যভাগ পর্যন্ত বড় বন্যার কোনো আশঙ্কা নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি। -বিবিসি বাংলা

ঢাকাটাইমস/২৩জুলাই

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সর্বশেষ খবর