নরসিংদীর রায়পুরার চেয়ারম্যান হত্যার ঘটনায় মামলা হয়নি

SIMANTO SIMANTO

BANGLA

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৫, ২০২২

মো: খায়রুল ইসলাম :
নরসিংদীর রায়পুরায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত মির্জারচর ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি যুবলীগ সভাপতি জাফর ইকবাল মানিক হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত থানায় কোনো মামলা হয়নি। এ ঘটনায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ মিয়াকে প্রধান আসামি করে থানায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছে স্বজনরা।

হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করলেও খুনের কোনো কূলকিনারা করতে পারেনি পুলিশ।

রায়পুরা থানাধীন মির্জারচর ইউনিয়নের শান্তিপুর এলাকায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পুলিশ সুপার, কাজী আশরাফুল আজীম। এ সময় জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। তবে সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি তিনি।

নিহতের মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস জানান, তারা তিন বোন। বাবাকে ছাড়া বাঁচার কোনো পথ নেই তাদের।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস বাবার মৃত্যুর সংবাদ শুনে রোববার নরসিংদীর সদর হাসপাতালে এসে বাবার লাশ দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন। বাবাকে হারানোর শোকে বারবার মূর্ছা যাচ্ছিলেন তিনি। হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি করে তিনি বলেন, ‘আমাদের আর কেউ রইল না।’

এদিকে প্রকাশ্যে ইউপি চেয়ারম্যানকে গুলি করে হত্যার পর জেলাজুড়ে নতুন করে আতঙ্ক বিরাজ করছে। জেলা যুবলীগ সভাপতি বিজয় গোস্বামী এ হত্যাকাণ্ডের দ্রুত বিচার দাবি করে নরসিংদীর আইনশৃংখলা অবনতিতে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

নিহতের প্রবাসী ছোট ভাই মো. হানিফ মিয়া বলেন, ‘২০১৮ সালে নিহত আমাদের ভাতিজা, চাচাতো ভাইসহ ৪ স্বজনকে গুলি করে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষরা। সর্বশেষ গত বছর অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পরও প্রতিপক্ষের গুলিতে মামুন নামে মানিক চেয়ারম্যানের এক সমর্থক নিহত হয়।’

এরই ধারাবাহিকতায় পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ মিয়ার সমর্থকরা মানিক চেয়ারম্যানকে গুলি করে হত্যা করেছে বলে জানায় নিহতের ছোট ভাই।

তিনি আরও জানান, নিহতের লাশ রোববার দুপুরে নরসিংদী সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

ময়নাতদন্ত করা চিকিৎসক ডা. তৌহিদুল আলম জানায়, তার শরীরে বুকের ওপরে ডান সাইডে একটি গুলির আঘাত পাওয়া গেছে। ভেতরে একটি গুলির খোসা পেলেও গুলি পাওয়া যায়নি।

শরীর থেকে গুলির খোসা পাওয়া গেল কীভাবে, এ ব্যাপারে গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক জাহাঙ্গীর আলমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘শরীরের ভেতরে গুলির খোসা যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।’

বিকেল ৩টায় রায়পুরা রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু অডিটরিয়াম মাঠে জাফর ইকবাল মানিকের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে।