নরসিংদীতে পাওনা টাকা চাওয়ায় কর্মচারীর থাপ্পড়ে ব্যবসায়ীর মৃত্যু

SIMANTO SIMANTO

BANGLA

প্রকাশিত: এপ্রিল ২২, ২০২২

মো: খায়রুল ইসলামঃ
নরসিংদীর রায়পুরায় খেজুর বিক্রির পাওনা টাকা ফেরত চাইতে গিয়ে কর্মচারীর থাপ্পড়ে ধন মিয়া (৫৫) নামে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ইফতারের পর রাতে উপজেলার বাঁশগাড়ী ইউনিয়নের বটতলীকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নিহত ধন মিয়া দুর্গম চরাঞ্চলের বাশঁগাড়ী ইউনিয়নের বটতলীকান্দি গ্রামের মৃত আবদুস সামাদ মিয়ার ছেলে। তিনি পেশায় একজন মৌসুমি ব্যবসায়ী ছিলেন।
পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ব্যবসায়ী ধন মিয়া গতকাল বৃহস্পতিবার ইফতারের পর রাতে বটতলীকান্দি বাজারে লিটনের দোকানে খেজুর বিক্রির পাওনা টাকা আনতে যান। কিন্তু দুই দিন আগে লিটনকে একটি মামলায় পুলিশ গ্রেপ্তার করে। বর্তমানে তিনি জেলহাজতে রয়েছেন। দোকানের মালিক লিটনকে না পেয়ে কর্মচারী মাইন উদ্দিনের কাছে পাওনা টাকা চাওয়া নিয়ে দুজনের মধ্যে কথা-কাটাকাটি শুরু হয়। একপর্যায়ে বাগ্‌বিতণ্ডায় লিপ্ত হন তাঁরা। এ সময় দোকানের কর্মচারী মাইন উদ্দিন থাপ্পড় দেন ধন মিয়াকে। পরে আহত অবস্থায় ধন মিয়া ব্যাটারিচালিত রিকশার চড়ে বাড়িতে এলে স্বজনেরা বাঁশগাড়ী নতুন বাজারে স্থানীয় পল্লি চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। সেখানে অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নেওয়ার পরামর্শ দেন। হাসপাতালে নেওয়ার পথেই তাঁর মৃত্যু হয়। পরে পুলিশে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়।

নিহতের ছেলে তোফাজ্জল বলেন, ‘এক সপ্তাহ আগে আমাদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে বাকিতে এক বস্তা খেজুর নিয়ে যান ব্যবসায়ী লিটন। গত বৃহস্পতিবার পাওনা টাকা না দিয়ে আবারও লিটনের পক্ষ থেকে এক বস্তা খেজুর নেওয়ার জন্য এলে বলা হয় আগের টাকা না দিলে আর মাল দেওয়া হবে না। পরে রাতে সব টাকা পরিশোধ করার কথা বলে খেজুর নিয়ে যাওয়া হয়। ইফতারের পর বাবা বটতলীকান্দি বাজারে লিটনের দোকানে খেজুর বিক্রির পাওনা টাকা আনতে যান। কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে দোকানের কর্মচারী মাইন উদ্দিন বাবাকে থাপ্পড় দেন। পরে বাবা আহত অবস্থায় ব্যাটারিচালিত রিকশায় করে বাড়ির কাছে এলে নিকটস্থ ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে রায়পুরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পথে বাবার মৃত্যু হয়।’
এ বিষয়ে বাঁশগাড়ী পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) মো. ইউসুফ আলী জানান, ব্যবসায়ী লিটনকে চড় দেওয়ার পর সম্ভবত স্ট্রোক করেছেন। এ ঘটনার পর স্থানীয় পল্লি চিকিৎসক হয়ে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে রাতেই ঘটনাস্থল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে সুরতহাল সম্পন্ন করে ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর হয়েছে।
রায়পুরা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গোবিন্দ সরকার জানান, এখন পর্যন্ত এ ঘটনায় লিখিত কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।