ওজু করে মাস্ক পরে যেতে হবে মসজিদে

SIMANTO SIMANTO

BANGLA

প্রকাশিত: এপ্রিল ৫, ২০২১

সীমান্তবাংলা ডেক্স : করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে এক সপ্তাহের জন্য শুরু হওয়া দেশব্যাপী কঠোর বিধিনিষেধ চালুর দিনেই মসজিদে নামাজ আদায়ের ক্ষেত্রে বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়।

সোমবার জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বাসা থেকে ওজু করে মসজিদে প্রবেশ করতে বলা হয়েছে। নিদের্শনায় মুসল্লিদের মসজিদে প্রবেশের সময় অবশ্যই মাস্ক পরে এবং বাসায় সুন্নাত নামাজ আদায় করতে বলা হয়েছে।

এছাড়া করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির মধ্যে আসছে রমজানে মসজিদে ইফতার ও সেহরির আয়োজন করা যাবে না বলেও বিজ্ঞপ্তিতে দেয়া হয়েছে।

মসজিদে জামাতে নামাজ আদায়ের জন্য আবশ্যিকভাবে পালনের জন্য দেয়া বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবজনিত কারণে সারাদেশে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ২৯ মার্চ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ১৮ দফা এবং মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ৪ এপ্রিল বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে কতিপয় দিক নির্দেশনা দেয়। সেই পরিপ্রেক্ষিতে দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে এই ১০টি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

১. মসজিদের প্রবেশদ্বারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার/হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ সাবান-পানি রাখতে হবে এবং আগত মুসল্লিকে অবশ্যই মাস্ক পরে মসজিদে আসতে হবে।

২. প্রত্যেককে নিজ নিজ বাসা থেকে ওজু করে, সুন্নত নামাজ ঘরে আদায় করে মসজিদে আসতে হবে এবং ওজু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে।

৩. মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের আগে সম্পূর্ণ মসজিদ জীবানুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে, মুসল্লিদের নিজ নিজ দায়িত্বে জায়নামাজ নিয়ে আসতে হবে।

৪. কাতারে নামাজে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে।

৫. শিশু, বয়োবৃদ্ধ, যেকোনো অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তি জামায়াতে অংশগ্রহণ করা থেকে বিরত থাকবেন।

৬. সংক্রমণ রোধ নিশ্চিতে মসজিদের ওজুখানায় সাবান/হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না।

৭. সর্বসাধারণের সুরক্ষা নিশ্চিতে, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনীর নির্দেশনা অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে।

৮. মসজিদে ইফতার ও সেহরির আয়োজন করা যাবে না।

৯. করোনাভাইরাস মহামারি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য নামাজ শেষে মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে খতিব ও ইমামরা দোয়া করবেন।

১০. সম্মানিত খতিব, ইমাম এবং মসজিদ পরিচালনা কমিটি বিষয়গুলো বাস্তবায়ন নিশ্চিত করবেন।

এই নির্দেশনা লঙ্ঘিত হলে স্থানীয় প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনী সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীলদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেবেন।

 

 

০৫এপ্রিল/বিইউ/এডমিন/ইবনে

সংবাদটি শেয়ার করুন